প্রোটোকল ভেঙে নির্বাচনী এলাকায় শেখ হাসিনা, দেখা করলেন স্থানীয়দের সঙ্গে

03:36 PM Dec 08, 2023 |
Advertisement

সুকুমার সরকার, ঢাকা: আগামী ৭ জানুয়ারি বাংলাদেশে সাধারণ নির্বাচন। তুঙ্গে প্রস্তুতি। জোরকদমে চলছে নির্বাচনের কাজ। আসন্ন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে শাসক-বিরোধী তরজা ক্রমেই জোরাল হচ্ছে। এর মাঝেই নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে শুক্রবার নিজের নির্বাচনী এলাকা গোপালগঞ্জ জেলার নেতা-কর্মীদের সঙ্গে মত বিনিময় করলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রোটোকল ভেঙেই সেখানে পৌঁছন তিনি।  

Advertisement

জানা গিয়েছে, গোপালগঞ্জে দুদিনের সফরে গিয়েছেন শেখ হাসিনা (Seikh Hasina)। শুক্রবার ছিল এই সফরের দ্বিতীয় দিন। এদিন সকালে টুঙ্গিপাড়া থেকে কোটালিপাড়া যান প্রধানমন্ত্রী। আওয়ামি লিগের দপ্তর সম্পাদক ব্যারিস্টার বিপ্লব বড়ুয়া বলেন, “নির্বাচন কমিশনের আচরণবিধি মেনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা‌ আজ সকালে প্রোটোকলের বাইরে গিয়ে  পতাকাবিহীন ব্যক্তিগত গাড়িতে টুঙ্গিপাড়া থেকে কোটালিপাড়া যান। বৃহস্পতিবার ঢাকা থেকে সড়কপথে গোপালগঞ্জ যান আওয়ামি লিগ সভাপতি। স্থানীয় নেতাদের সঙ্গে বৈঠক শেষে আজ পদ্মাসেতু হয়ে সড়কপথে তাঁর ঢাকা ফেরার কথা।”

এদিন কোটালিপাড়ায় নেতাকর্মীদের সঙ্গে মত বিনিময় করেছেন হাসিনা। কোটালিপাড়া উপজেলা আওয়ামি লিগ কার্যালয়ে ঘরোয়াভাবে স্থানীয় শীর্ষ নেতাদের সঙ্গে মত বিনিময় সভায় অংশ নেন তিনি। এই সময় সংসদ সদস্য শেখ হেলালউদ্দিন, শেখ সালাউদ্দিন, শেখ তন্ময় তাঁর সঙ্গে ছিলেন।

[আরও পড়ুন: বিশ্বের ১০০ প্রভাবশালী নারীর তালিকায় হাসিনা, ফোর্বস-স্বীকৃতি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে]

এদিকে হাসিনা সরকারকে উৎখাত করার দাবিতে বিএনপি-জামাত-সহ সমমনা দলগুলো নির্বাচন বর্জন করেছে। একই দাবিতে তারা ২০১৪ ও ২০১৯ সালেও ভোট বয়কট করেছিল। গত দুমাস ধরে বিরোধীদলগুলোর ডাকা অবরোধ-বনধে ২৬৭টি যানবাহনে অগ্নিসংযোগের খবর পেয়েছে দমকল বিভাগ। অবশ্য বেসরকারি হিসাব আরও বেশি। আজ শুক্রবার দমকল সদর দপ্তর থেকে মিডিয়া সেল জানিয়েছে, গত ২৮ অক্টোবর থেকে ৮ ডিসেম্বর সকাল ৬টা পর্যন্ত এসব অগ্নিসংযোগের ঘটনা ঘটানো হয়েছে।

অন্যদিকে, বাংলাদেশের (Bangladesh) নির্বাচন দেখতে চান ১৭৯ বিদেশি পর্যবেক্ষক। যাঁদের মধ্যে ১৩১ পর্যবেক্ষক এবং ৪৮ জন সাংবাদিক রয়েছেন। সব মিলিয়ে নির্বাচন কমিশনের দেওয়া নির্ধারিত সময়ে নির্বাচন দেখতে আগ্রহী ১৭৯ জন আবেদন করেছেন। বৃহস্পতিবার নির্বাচন কমিশন সচিব মহম্মদ জাহাঙ্গির আলম এই তথ্য দিয়েছেন। ইসির দেওয়া অনুমোদন সাপেক্ষে তাঁরা পর্যবেক্ষক হিসাবে আসতে পারবেন। আবেদনকারীদের আগামী ১৬ ডিসেম্বরের মধ্যে অনুমোদন দেওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে আসতে পারবেন। আবেদনগুলো বিদেশমন্ত্রকে পাঠানো হয়েছে।

নির্বাচন কমিশনের সূত্র জানিয়েছে, দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচন দেখার জন্য ৩৪টি দেশের নির্বাচন কমিশন ও ৪টি সংস্থার ১১৪ জনকে আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে। তাঁদের স্থানীয় যাতায়াত ও থাকা-খাওয়ার সব ব্যয় বহন করবে ভোট আয়োজনকারী সংস্থাটি।

[আরও পড়ুন: ভারতের ‘অঙ্গুলিহেলনে’ নির্বাচন, হাসিনা সরকারকে তোপ বিএনপির]

আমন্ত্রিত দেশগুলোর মধ্যে রয়েছে-ভারত, ভুটান, মালদ্বীপ, নেপাল, শ্রীলঙ্কা, অস্ট্রেলিয়া, কানাডা, ফ্রান্স, জর্জিয়া, ইন্দোনেশিয়া, কাজাখস্তান, রাশিয়া, দক্ষিণ কোরিয়া, মিশর, তুরস্ক, উজবেকিস্তান, আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, দক্ষিণ আফ্রিকা, সেনেগাল, থাইল্যান্ড, আজারবাইজান, মালয়েশিয়া, মরিশাস, তিউনিশিয়া, ব্রুনাই, সংযুক্ত আরব আমিরশাহী, কাতার, ওমান, কুয়েত, সৌদি আরব, চিন, জাপান ও সিঙ্গাপুর। এ ছাড়া সার্ক ও ওআইসি মহাসচিব, ফেম্বোসা ও এ-ওয়েব চেয়ারপার্সনকেও আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে।

Advertisement
Next