Advertisement

১৩ মে সামশেরগঞ্জ ও জঙ্গিপুরে নির্বাচন নিয়ে কমিশনের বিরুদ্ধে অসন্তোষ প্রকাশ মমতার

08:21 PM Apr 19, 2021 |
Advertisement
Advertisement

শাহাজাদ হোসেন, ফারাক্কা: আগামী ১৩ মে অর্থাৎ ইদ হওয়ার সম্ভাবনা যেদিন বেশি, সেদিনই মুর্শিদাবাদের দুই কেন্দ্র সামশেরগঞ্জ এবং জঙ্গিপুরে (Jangipur) নির্বাচনের দিন ধার্য করেছে নির্বাচন কমিশন। যা নিয়ে ইতিমধ্যেই ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন স্থানীয়রা। এবার মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের (Mamata Banerjee) গলাতেও এনিয়ে শোনা গেল অসন্তোষের সুর। এমনকী সিপিএম এবং কংগ্রেসের তরফে চিঠি দিয়ে দিন পিছনোর অনুরোধও জানানো হয়েছে।

Advertisement

সোমবার কোভিড পরিস্থিতি নিয়ে সাংবাদিক বৈঠকে রাজ্যকে আশ্বস্ত করেন তৃণমূল নেত্রী। সেখানেই উঠে আসে দুই কেন্দ্রে নির্বাচনের প্রসঙ্গ। ইদের দিন নির্বাচনের দিনক্ষণ ধার্য হওয়ায় ক্ষুব্ধ সংখ্যালঘু সম্প্রদায়ের বহু মানুষ। সোশ্যাল মিডিয়ায় ভোট বয়কটের হুমকিও দিচ্ছেন কেউ কেউ। এ নিয়ে অসন্তুষ্ট মমতা বলেন, “নির্বাচন কমিশনের কাছেও নিশ্চয়ই ক্যালেন্ডার আছে। আমি আর কী বলব বলুন। তবে আমরা এ ব্যাপারে চিঠি দেব। এখন নয়। সময় মতো চিঠি দেওয়া হবে কমিশনকে।”

[আরও পড়ুন: ‘নায়িকার ফ্রক ধরে ভোটে জেতার কথা স্বপ্নেও ভাবি না’, অকপট ফিরহাদ হাকিম]

২৬ এপ্রিল অর্থাৎ সপ্তম দফায় সামশেরগঞ্জ (Samsherganj) আসনে নির্বাচন হওয়ার কথা ছিল। কিন্তু গত ১৫ এপ্রিল ওই কেন্দ্রের কংগ্রেস প্রার্থী রেজাউল হক করোনায় প্রয়াত হন। কংগ্রেস প্রার্থীর মৃত্যুতে নিয়ম মেনে বাতিল করতে হয় সামশেরগঞ্জ কেন্দ্রের নির্বাচন। অন্যদিকে, জঙ্গিপুর কেন্দ্রেও ২৬ এপ্রিলই ভোট হওয়ার কথা ছিল। এই কেন্দ্রেও থাবা বসায় করোনা। ১৬ এপ্রিল মৃত্যু হয় এই কেন্দ্রের সংযুক্ত মোর্চার প্রার্থী তথা আরএসপির (RSP) লোকাল কমিটির সম্পাদক প্রদীপ নন্দীর। যথারীতি ওই কেন্দ্রেও ভোট পিছিয়ে দিতে হয়। সোমবার কমিশনের তরফে দুটি পৃথক বিবৃতি দিয়ে জানানো হয়, আগামী ১৩ মে ওই দুই কেন্দ্রে নির্বাচন। ভোটগণনা আগামী ১৮ মে। কিন্তু ভোটের দিন (West Bengal Assembly Election 2021) ঘোষণা হতেই স্থানীয়দের একাংশ কমিশনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়েছেন।

আসাদউদ্দিন ওয়েইসির দল মিমের (AIMIM) তরফে সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার জন্য কমিশনকে চিঠি দেওয়া হয়েছে। যেখানে উল্লেখ করা হয়েছে, ১৩ মে ইদ হওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে। আর এই এলাকায় সংখ্যালঘুর আধিক্য রয়েছে। ফলে ইদের ব্যস্ততায় অনেকেই ভোট দিতে আসতে পারবেন না ওই দিন। তাই নির্বাচনের দিন বদলে নতুন দিনক্ষণ ঘোষণা করা হোক। মনোনয়নের শেষ তারিখও বদলের আরজি জানানো হয়েছে। কংগ্রেসের তরফে চিঠি দিয়ে দিন পিছনোর অনুরোধ জানিয়েছেন অধীর চৌধুরী। চিঠি দেওয়া হয়েছে সিপিএমের তরফেও।

এদিকে কমিশনের বিরুদ্ধে গর্জে উঠেছেন হাই কোর্টের আইনজীবী মোফাক্কেরুল ইসলামও। তৃণমূল যুব কংগ্রেসের সাধারণ সম্পাদক তথা সামশেরগঞ্জের তৃণমূল প্রার্থী আমিরুল ইসলামও দিন পরিবর্তনের আরজি জানিয়ে কমিশনকে চিঠি দিয়েছেন। কমিশনের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন মুর্শিদাবাদ সিপিএম জেলা কমিটির সদস্য মহম্মদ আজাদও।

[আরও পড়ুন: খিদিরপুরে রুদ্রনীলের মিছিলে ইটবৃষ্টির অভিযোগ, ‘নাটক’ বললেন শোভনদেব]

Advertisement
Next