Advertisement

অমানবিক! হাসপাতালের বিল মেটাতে না পারায় শ্রমিককে পিটিয়ে খুন, ভাইরাল ভিডিও

08:58 AM Jul 04, 2020 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: ফের অমানবিক যোগীর রাজ্য উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh))।হাসপাতালের বিল জমা দিতে না পারায় এক শ্রমিককে পিটিয়ে মারার অভিযোগ উঠল হাসপাতাল কর্মীদের বিরুদ্ধে। ঘটনাটি ক্যামেরাবন্দি হয়েছে সিসিটিভিতে। বৃহস্পতিবার এই ঘটনাটি ঘটেছে উত্তরপ্রদেশের আলিগড়ে (Aligarh)।

Advertisement

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

সুলতান খান নামের ওই ৪৪ বছরের শ্রমিক সম্প্রতি একটি হাসপাতালে চিকিৎসার জন্য আসেন। সঙ্গে ছিলেন তাঁর ভাইপো চমন। তিনি জানিয়েছেন, কয়েক দিন ধরে সুলতানের প্রস্রাবের সমস্যা হচ্ছিল। তাই ডাক্তার দেখাতে যান তিনি। চমন জানিয়েছেন, “প্রথমে জিজ্ঞাসা করি চিকিৎসা করাতে কত খরচ হবে। তাতে হাসপাতাল জানায়, আল্ট্রাসাউন্ড করার পরে বলতে পারা যাবে। কিন্তু আল্ট্রাসাউন্ডের আগেই ওষুধের জন্য আমাদের কাছে ৫ হাজার টাকা চাওয়া হয়। সেটা আমরা দিয়ে দিই। কয়েক ঘণ্টা পরে হাসপাতালের তরফে জানানো হয়, প্রতিদিনের বেড ভাড়া বাবদ ৪ হাজার টাকা দিতে হবে।”এত টাকা তাঁদের কাছে ছিল না বলেই জানিয়েছেন চমন।

[আরও পড়ুন : এ কোন সমাজ! মহিলা খদ্দেরকে খুনের পর মৃতদেহের সঙ্গে যৌনসঙ্গম দোকানদারের]

মৃতের ভাইপো আরও বলেন, “আমাদের কাছে অত টাকা ছিল না। তাই আমরা হাসপাতালকে বলি কাকাকে ছেড়ে দিতে। কিন্তু হাসপাতাল কাকাকে ছেড়ে দেওয়ার পরেও হাসপাতালের কর্মীরা আমাদের উপর নজর রাখে। আমাদের ধরে ৪ হাজার টাকা চাওয়া হয়। আমি বলি, কাকার অবস্থা ভাল নয়। ওদের কাছে হাতজোড় করে আমাদের ছেড়ে দিতে বলি। তাতে ওরা মারতে থাকে।” ওই মারেই সুলতানের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ চমনের। অভিযোগ অস্বীকার করেছে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

[আরও পড়ুন : করোনা আবহে পিছিয়ে গেল NEET ও JEE পরীক্ষা, নতুন দিন ঘোষণা কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর]

উত্তরপ্রদেশের একের পর এক অমানবিক ঘটনা সামনে এসেছে। কখনও করোনা রোগীদের সঙ্গে অমানবিক আচরণ। তো আবার কখনও চিকিৎসকদের জন্য উপযুক্ত ব্যবস্থার অভাব। এরমধ্যেই এই খবর সামনে এল। বলাইবাহুল্য, বিরোধী দলগুলি এ নিয়ে বিজেপির উপর চাপ বাড়াবে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

The post অমানবিক! হাসপাতালের বিল মেটাতে না পারায় শ্রমিককে পিটিয়ে খুন, ভাইরাল ভিডিও appeared first on Sangbad Pratidin.

Advertisement
Next