Advertisement

ত্রিপুরায় পৌঁছল সেরামের করোনা ভ্যাকসিন, ঘোষণা মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব দেবের

06:52 PM Jan 13, 2021 |
Advertisement
Advertisement

প্রণব সরকার, আগরতলা: অবশেষে প্রতীক্ষার অবসান। রাজ্যে এসে পৌঁছল সেরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন কোভিশিল্ড। রাজ্যবাসীকে এই সুখবর দিলেন ত্রিপুরার (Tripura) মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব।

Advertisement

[আরও পড়ুন: দৃষ্টান্ত স্থাপন করতে আগে নেতা-মন্ত্রীদের ভ্যাকসিন দিন, মোদিকে চিঠি পুদুচেরির মুখ্যমন্ত্রীর]

প্রশাসন সূত্রে খবর, বুধবার সকালে বিমানে আগরতলা পৌঁছয় করোনা ভ্যাকসিনের ৫৬ হাজার ৫০০ ডোজ। এদিন দুপুরে এমবিবি বিমানবন্দরে ইন্ডিগোর একটি বিমানে পুণের সিরাম ইনস্টিটিউটের তৈরি করোনা ভ্যাকসিন কোভিশিল্ড রাজ্যে এসে পৌঁছায়। বিমানবন্দর থেকে নিরাপত্তা বেষ্টনীর মধ্যদিয়ে এই ভ্যাকসিন নিয়ে যাওয়া হয় গোর্খাবস্তির NHM-এর কার্যালয়ে। সেখান থেকেই প্রতিষেধকটি রাজ্যের প্রতিটি জেলায় বিতরণ করা হবে বলে জানিয়েছেন NHM’-এর মিশন ডিরেক্টর। প্রথম পর্যায়ে রাজ্যে এসেছে ৫৬ হাজার ৫০০টি ভ্যাকসিন ডোজ। ১৬ জানুয়ারি  একযোগে দেওয়া হবে এই ভ্যাকসিন। রাজ্যের ১৫টি সেন্টারে টিকাকরণ চলবে। প্রথম পর্যায়ে স্বাস্থ্যকর্মীদের দেওয়া হবে এই প্রতিষেধক। মুখ্যমন্ত্রী বিপ্লব কুমার দেব জানিয়েছেন, প্রথমসারির যোদ্ধা হিসেবে টিকা প্রদানের ক্ষেত্রে সাংবাদিকদেরও অগ্রাধিকার দেওয়া হবে। যদিও রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি এখন সম্পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে। মৃত্যুর হার প্রায় নেই। হাসপাতালগুলিতেও কমছে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। তবে কোনওরকম ঝুঁকি নিতে নারাজ সরকার।

উল্লেখ্য, সেরাম কর্তা আদর পুনাওয়ালা জানিয়েছিলেন, দেশের সমস্ত মানুষের কাছে করোনার টিকা পৌঁছে দেওয়াই তাঁদের মূল উদ্দেশ্য। সেই কারণে ন্যূনতম লাভ রেখেই সরকারকে ভ্যাকসিন বিক্রির প্রস্তাব দেওয়া হয়েছিল। প্রতি ভ্যাকসিনের বোতল কেনা যাবে ২০০ টাকায় বলে ঘোষণা করা হয়। পুনাওয়ালা এও জানিয়েছিলেন, সরকারের পাশাপাশি ওষুধের দোকানের মাধ্যমে সরাসরি ভ্যাকসিন পৌঁছে দিতে চান মানুষের কাছে। সেক্ষেত্রে আরও খানিকটা বেশি মূল্য দিয়ে টিকাটি ক্রয় করতে হবে। যদিও এ ব্যাপারেও সরকারের অনুমতি প্রয়োজন। সেই বিষয়ে এখনও পর্যন্ত চূড়ান্ত কোনও সিদ্ধান্ত হয়নি। এদিকে, সেরামকে ভ্যাকসিনের অর্ডার দেওয়ার দিনই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি (PM Modi) জানিয়ে দেন, প্রথম পর্যায়ে ৩ কোটি কোভিড যোদ্ধার টিকাকরণের খরচ বহন করবে কেন্দ্রই। এক্ষেত্রে রাজ্যের কোনও খরচ নেই।

[আরও পড়ুন: ‘কৃষকরা নিজেরাই জানেন না তাঁরা কী চান’, বিজেপি সাংসদ হেমা মালিনীর মন্তব্যে বিতর্ক]

Advertisement
Next