নিয়ম ভেঙে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি, বিতর্কে জড়ালেন ছাত্রলিগের কেন্দ্রীয় সভাপতি

01:29 PM Jul 10, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার ক্ষেত্রে নিষেধাজ্ঞা জারি হয়েছে। তবে তা সত্ত্বেও ছবি তোলার প্রবণতা যেন রোখা যাচ্ছে না। এবার নিয়ম ভেঙে ছবি তোলার অভিযোগের তালিকায় নাম জুড়ল ছাত্রলিগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খানের। যদিও তাঁর ঘনিষ্ঠ এক নেতার দাবি, “নিয়ম ভাঙা হয়নি। অনুমতি নিয়ে পদ্মা সেতুতে (Padma Setu) দাঁড়িয়ে ছবি তুলেছেন আল নাহিয়ান খান।”

Advertisement

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782001027-0'); });

ইদ উপলক্ষে বরিশালের গ্রামের বাড়িতে যাচ্ছিলেন ছাত্রলিগের কেন্দ্রীয় সভাপতি আল নাহিয়ান খান। সেই সময় পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি তোলেন। তাঁর সঙ্গে ছিলেন আরও অনেকে। ছিলেন ছাত্রলিগের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি রাকিব হোসেন, তিলোত্তমা শিকদার, ত্রাণ ও দুর্যোগ বিষয়ক সম্পাদক ইমরান জমাদ্দার, সাহিত্য বিষয়ক উপসম্পাদক এস এম রিয়াদ হাসান এবং আন্তর্জাতিক বিষয়ক উপসম্পাদক সামাদ আজাদ, ঢাকা মহানগর উত্তর শাখার সভাপতি ইব্রাহিম হোসেন-সহ বেশ কয়েকজন।

window.unibots = window.unibots || { cmd: [] }; unibots.cmd.push(()=>{ unibotsPlayer('sangbadpratidin'); });

সোশ্যাল মিডিয়ায় ওই ছবি শেয়ার করেন প্রত্যেকে। তারপর থেকে ওই ছবি নিয়ে বিতর্ক মাথাচাড়া দিয়েছে। জানা গিয়েছে, নিয়ম ভেঙে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি তুললেও তাঁদের এক পয়সাও জরিমানা দিতে হয়নি। আল নাহিয়ান খানের ঘনিষ্ঠের দাবি, অনুমতি নিয়ে পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে ছবি তোলা হয়েছে। ছাত্রলিগের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি রাকিব হোসেন যদিও জানান, “প্রথমবার পদ্মা সেতু পার হওয়ার অনুভূতি অন্যরকম ছিল। তাই ছবি তুলেছিলাম। তবে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নেওয়া উচিত ছিল।”

Advertising
Advertising

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1652782050143-0'); });

[আরও পড়ুন: লুটের উদ্দেশ্যে খুন? পুরুলিয়ায় বাবা-ছেলের রক্তাক্ত দেহ উদ্ধার, প্রতিবাদে অবরুদ্ধ জাতীয় সড়ক]

উল্লেখ্য, গত ২৫ জুন বহু প্রতীক্ষীত পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা (Sheikh Hasina)। সেতু উদ্বোধনকে বাংলাদেশ সরকার ‘স্বপ্নের উন্মোচন’ বলে আখ্যা দেয়। মোট ৩০ হাজার ১৯৪ কোটি টাকা ব্যয়ে তৈরি হওয়া পদ্মা সেতুর (Padma Bridge) কাজের চুক্তিমূল্য ছিল প্রায় ১২ হাজার ৪৯৪ কোটি টাকা। সেতু তৈরি হতে সময় লেগেছে ৯০ মাস ২৭ দিন। দিনরাত খেটে কাজ করেছেন প্রায় ১৪ হাজার দেশি-বিদেশি শ্রমিক, ইঞ্জিনিয়ার। পরামর্শকের মধ্যে প্রায় এক হাজার ২০০ দেশি, দুই হাজার ৫০০ বিদেশি ইঞ্জিনিয়ার।

শ্রম দিয়েছেন প্রায় ৭ হাজার ৫০০ দেশি শ্রমিক, আড়াই হাজার বিদেশি শ্রমিক এবং প্রায় ৩০০ দেশি-বিদেশি পরামর্শক। নবনির্মিত সেতুর ফলে রাজধানী ঢাকা (Dhaka) এবং অন্যান্য বড় শহরের সঙ্গে দক্ষিণ ও দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের ২১টি জেলার সড়ক যোগাযোগে সময় ও অর্থ দু’টিই সাশ্রয় হয়েছে। কলকাতা-ঢাকা সড়কপথে যেতে কমপক্ষে ১৬ ঘণ্টা সময় লাগত। পদ্মা সেতুর উপর দিয়ে গেলে সাড়ে ছ’ঘণ্টাতেই পৌঁছনো যাবে। এই ঐতিহাসিক কীর্তির জন্য বাংলাদেশকে অভিনন্দন জানায় ভারত।

পদ্মা সেতু উদ্বোধনের পরই একাধিক নিয়মবিধি লাগু করে সরকার। পদ্মা সেতুতে আপাতত নিষিদ্ধ বাইক চলাচল। বিধিনিষেধ না মেনে পদ্মা সেতুতে টিকটক ভিডিও, গাড়ি থামিয়ে হাঁটাচলা কিংবা ছবি তোলার ক্ষেত্রেও নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। নিয়ম অমান্য করলেই গুনতে হবে জরিমানাও। তা সত্ত্বেও ঐতিহাসিক পদ্মা সেতুতে দাঁড়িয়ে সেলফি তোলার প্রবণতা যেন রোখাই যাচ্ছে না।

[আরও পড়ুন: ‘মা কালীর আশীর্বাদ সবসময় ভারতের সঙ্গে আছে’, বিতর্কের মধ্যেই মুখ খুললেন প্রধানমন্ত্রী]

Advertisement
Next