Advertisement

লখিমপুর কাণ্ডে নাম জড়ালেও মন্ত্রিত্ব যাচ্ছে না অজয় মিশ্রর! অমিত শাহর সঙ্গে সাক্ষাৎ ঘিরে জল্পনা

05:28 PM Oct 06, 2021 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: উত্তরপ্রদেশের লখিমপুর খেরিতে কৃষক মৃত্যুর ঘটনায় নাম জড়ানোর পরও পদ খোয়াতে হচ্ছে না কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রকে (Ajay Mishra)। অন্তত কেন্দ্রীয় সরকারি সূত্রে এমনটাই দাবি। বুধবারই স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে দেখা করেছেন অজয় মিশ্র। শাহ সাক্ষাতের আগে তিনি নিজেও দাবি করেছেন, তাঁর ইস্তফা দেওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই।

Advertisement

লখিমপুরের (Lakhimpur) ঘটনা নিয়ে উত্তপ্ত পরিস্থিতির মধ্যেই বুধবার দিল্লিতে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রকের দপ্তরে পৌঁছন অজয় মিশ্র। তাঁকে তলব করা হয়েছিল, নাকি তিনি নিজেই এসেছিলেন সেটা স্পষ্ট নয়। তবে, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহর সঙ্গে তাঁর লখিমপুরের ঘটনা নিয়ে বেশ কিছুক্ষণ কথা হয়েছে বলে জানিয়েছেন অজয়। অমিত শাহর (Amit Shah) সঙ্গে আলোচনায় মিশ্র জানিয়েছেন, পুরো ঘটনার পূর্ণাঙ্গ তদন্ত হওয়া প্রয়োজন। কারণ, যারা যারা কৃষকদের এই বিক্ষোভের নেপথ্যে আছেন তাঁরা সবাই কৃষক নন।

[আরও পড়ুন: লখিমপুর নিয়ে যোগীকে ফোন মোদির, রাহুল-প্রিয়াঙ্কাকে ঘটনাস্থলে যাওয়ার অনুমতি]

এদিন সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী জানিয়েছেন, তাঁর ইস্তফা দেওয়ার কোনও প্রশ্নই নেই। অজয় মিশ্রর সাফ কথা, “আমি কেন ইস্তফা দেব? আমার উপর কোনওরকম চাপ নেই। আমরা পুরো ঘটনার তদন্ত করব। কারা কারা ষড়যন্ত্র করছে, এর সঙ্গে কারা জড়িয়ে, সবটা খতিয়ে দেখব। যারা যারা এই ষড়যন্ত্রের সঙ্গে যুক্ত তাঁদের সবার বিরুদ্ধে কড়া পদক্ষে করা হবে।”

[আরও পড়ুন: ডিভিসির ছাড়া জলে রাজ্যে বন্যা পরিস্থিতি, নালিশ জানিয়ে মোদিকে চিঠি ‘ক্ষুব্ধ’ মুখ্যমন্ত্রীর]

ইস্তফা দিতে রাজি না হলেও কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী স্বীকার করে নিয়েছেন, লখিমপুরে যে গাড়িটি কৃষকদের পিষে মেরেছিল, সেই গাড়িটি তাঁদেরই। তবে, তাঁর ছেলে ওই গাড়িতে ছিল না। কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলছেন, “প্রথম দিন থেকেই আমরা বলছি গাড়িটা আমদেরই। কিন্তু আমার ছেলে ওই গাড়িতে ছিল না। আমার ছেলে অন্য জায়গায় ছিল। হাজার হাজার মানুষ সাক্ষী দিতে রাজি আছেন।” কেন্দ্রীয় মন্ত্রীর বক্তব্য, ওই দুর্ঘটনার পর তাঁর গাড়ির চালক এবং বিজেপি কর্মীদের উপর হামলা হয়েছে। চালকের প্রাণ গিয়েছে। দু’জন বিজেপি (BJP) কর্মীর মৃত্যু হয়েছে। একজন পালিয়ে বেঁচেছে। এভাবে কৃষকরা হামলা চালাতে পারে না। কৃষকদের মধ্যে লুকিয়ে আছে দুষ্কৃতীরা। 

Advertisement
Next