Advertisement

পুজোর আগেই উপনির্বাচন চায় রাজ্য, মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর কমিশনকে চিঠি মুখ্যসচিবের

09:34 PM Sep 01, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: রাজ্যের ৫ কেন্দ্রের উপনির্বাচন (WB By Election) এবং ২ কেন্দ্রের সাধারণ নির্বাচন হোক পুজোর আগেই। মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে জরুরি বৈঠকের পর কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনকে চিঠি দিয়ে জানালেন রাজ্যের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। বুধবার দুপুরে ১৭টি রাজ্যের মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকদের সঙ্গে বৈঠক করেন মুখ্য নির্বাচন কমিশনার। শুধু বাংলা নয়, অন্যান্য রাজ্যের কাছেও উপনির্বাচন নিয়ে মতামত জানতে চাওয়া হয়। সূত্রের খবর, অধিকাংশ রাজ্যই দ্রুত উপনির্বাচন করার পক্ষে সায় দিয়েছে। আর তাতেই আশা দেখছে তৃণমূল কংগ্রেস।

Advertisement

বুধবার উপনির্বাচন নিয়ে সংশ্লিষ্ট রাজ্যের মুখ্যসচিবদের সঙ্গেও বৈঠক করেন কমিশনের (Election Commission) কর্তারা। সেখানে এখনই নির্বাচনের পক্ষে মত দেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যসচিব হরিকৃষ্ণ দ্বিবেদী। বুধবার দফায় দফায় কমিশনের বৈঠককে ইতিবাচক পদক্ষেপ হিসেবে দেখছে রাজ্যের শাসকদল। কমিশনের সঙ্গে বৈঠকের পর মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় আলাদা করে মুখ্যসচিবের সঙ্গে বৈঠক করেন। প্রায় ১ ঘণ্টার আলোচনার পর মুখ্যসচিবের (Chief Secretory) তরফে কেন্দ্রীয় নির্বাচন কমিশনকে একটি চিঠি পাঠানো হয়েছে। যাতে বলা হয়েছে, রাজ্যে উপনির্বাচন করতে হলে সেপ্টেম্বরই আদর্শ সময়।

[আরও পড়ুন: WB By-election: পুজোর আগেই ভোট করাতে প্রস্তুত রাজ্য, কমিশনকে জানিয়ে দিলেন আধিকারিকরা]

রাজ্যে এখনই উপনির্বাচন করার পক্ষে বেশ কয়েকটি যুক্তিও দিয়েছেন মুখ্যসচিব। তিনি জানিয়েছেন, যে আসনগুলিতে উপনির্বাচন হওয়ার কথা সেখানে করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১ শতাংশেরও কম। তাছাড়া এই মুহূর্তে রাজ্যের পজিটিভিটি রেট দেড় শতাংশের আশেপাশে। গোটা দেশের তুলনায় এই মুহূর্তে রাজ্যের অ্যাকটিভ রোগীর সংখ্যা গোটা দেশের ২ শতাংশেরও কম। তাছাড়া, ভোটের কাজে যুক্ত সব আধিকারিকদের ইতিমধ্যেই টিকাদান সম্পন্ন হয়েছে। অর্থাৎ এই মুহূর্তে ভোট হলে করোনার তেমন ভয় নেই। তাছাড়া, অক্টোবরে রাজ্যে পুজোর ছুটি। বেশ কিছুদিন বন্ধ থাকবে মুখ্য নির্বাচনী আধিকারিকের দপ্তরও। সুতরাং ভোট করার উপযুক্ত সময় সেপ্টেম্বরই।

[আরও পড়ুন: Narada Case: ফিরহাদ-সুব্রত-মদন-শোভন-সহ পাঁচ জনের বিরুদ্ধে চার্জশিট পেশ করল ED]

প্রসঙ্গত, জয়ী বিধায়কদের পদত্যাগ এবং মৃত্যুর কারণে রাজ্যের ৫টি কেন্দ্র এই মুহূর্তে বিধায়ক শূন্য। আর মুর্শিদাবাদের দুটি কেন্দ্রে ভোটের আগে প্রার্থীদের মৃত্যুর জন্য বিধানসভা ভোটেরই আয়োজন করা যায়নি। সব মিলিয়ে সাত কেন্দ্রে নির্বাচন হওয়ার কথা নভেম্বরের মধ্যে। এর মধ্যে ভবানীপুর, খড়দহ, গোসাবা, শান্তিপুর এবং দিনহাটায় উপনির্বাচন হওয়ার কথা। জঙ্গিপুর, সামশেরগঞ্জে সাধারণ নির্বাচন হওয়ার কথা। তবে, সবচেয়ে বেশি নজর রয়েছে ভবানীপুর কেন্দ্রে। কারণ ওই কেন্দ্র ঠেকেই নির্বাচনে লড়বেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)।

Advertisement
Next