Advertisement

দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের সুবর্ণ জয়ন্তী, হাসিনাকে ফোন করে শুভেচ্ছা বিনিময় ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীর

03:56 PM Jan 14, 2022 |

সুকুমার সরকার, ঢাকা: স্বাধীনতার সুবর্ণ জয়ন্তী বর্ষে এবার ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রীর তরফে শুভেচ্ছাবার্তা জানিয়ে ফোন এল বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী (Bangladesh PM) শেখ হাসিনার কাছে। বাংলাদেশ-ডেনমার্ক দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কেরও ৫০ বছর এবার। সেকথা উল্লেখ করে শুভেচ্ছা জানিয়েছেন ড্যানিশ প্রধানমন্ত্রী। জলবায়ু পরিবর্তন রোধে দুই দেশ একসঙ্গে কাজ করবে, এই আলোচনাও হয়েছে দুই রাষ্ট্রপ্রধানের মধ্যে। টেলিফোনের জন্য ডেনমার্কের (Denmark)প্রধামন্ত্রী মেট ফ্রেডরিকসেনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন হাসিনা। পরে সাংবাদিক সম্মেলনে দুই প্রধানের ফোনালাপ নিয়ে বিশদে জানান হাসিনার প্রেস সচিব ইহসানুল করিম।

Advertisement

প্রধানমন্ত্রীর দপ্তর সূত্রে খবর, বৃহস্পতিবার স্থানীয় সময় বিকেল সাড়ে তিনটে নাগাদ শেখ হাসিনাকে ফোন করেন ড্যানিশ প্রধানমন্ত্রী মেট ফ্রেডরিকসেন (Mette Frederiksen)। এবছর দুই দেশের সম্পর্কের ৫০ তম বর্ষ। সে কথা মনে করিয়ে হাসিনার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় করেন ডেনমার্কের প্রধানমন্ত্রী। এছাড়া বাংলাদেশের স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষেও অভিনন্দন জানান ফ্রেডরিকসেন। বেশ কিছুক্ষণ দু’জনের মধ্যে কথা হয়েছে বলে খবর।

[আরও পড়ুন: বাউল সেজে গা-ঢাকা দিয়েও শেষরক্ষা হল না, বাংলাদেশে গ্রেপ্তার কুখ্যাত সিরিয়াল কিলার]

এ প্রসঙ্গে ফ্রেডরিকসেন প্রস্তাব দেন, জলবায়ু পরিবর্তন রুখতে এবং অন্যান্য বাণিজ্যিক সম্পর্ক আরও মজবুত করতে হাতে হাত রেখে এগিয়ে চলার। আগেও ডেনমার্কের সঙ্গে একাধিক বিষয়ে যৌথভাবে কাজ করেছে বাংলাদেশ। ফলে ড্যানিশ প্রধানমন্ত্রীর প্রস্তাবে সহজেই সাড়া দেন শেখ হাসিনা। তিনি জানান, নিশ্চয়ই এ বিষয়ে বিশদে আলোচনা করে পদক্ষেপ গ্রহণ করা হবে। বিশেষত এই মুহূর্তে জলবায়ু পরিবর্তন যেভাবে দুশ্চিন্তার বিষয় হয়ে উঠেছে, তাতে যৌথভাবে কাজ করা খুবই জরুরি বলে মতপ্রকাশ করেন হাসিনা।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: বাংলাদেশের বিরুদ্ধে অপপ্রচার! আগুনে পুড়ে যাওয়া শিবিরের ছবি ভাইরাল করছে রোহিঙ্গারাই]

মেট ফ্রেডরিকসেন ডেনমার্কের সর্বকনিষ্ঠ প্রধানমন্ত্রী। ২০১৯ সালে সোশ্যাল ডেমোক্র্যাট পার্টিকে জিতিয়ে প্রধানমন্ত্রীর পদে বসেন তিনি। দলের সর্বময় নেত্রীও তিনি নিজে। মাত্র ৪৪ বছর বয়সে তিনি দেশের প্রধানমন্ত্রী হয়ে রেকর্ড গড়েছেন। এই বিরল কৃতিত্বের জন্য বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী আবারও তাঁকে অভিনন্দন জানান।

Advertisement
Next