ফিরে দেখা ২০২১: বছরভর বিতর্কের কেন্দ্রে ছিল যে ঘটনাগুলি

05:59 PM Dec 28, 2021 |
Advertisement

সময়ের স্রোতে বিলীন হতে চলেছে আরও একটা বছর। নতুন বছরে সুসময়ের প্রতীক্ষা শুরু হয়ে গিয়েছে। সেই সঙ্গে মনে পড়ছে বছরভর চলতে থাকা বিতর্কগুলির কথাও। যা ঝড় তুলেছিল ২০২১ সালের বিভিন্ন সময়ে। খেলা থেকে রাজনীতি, বিনোদন থেকে অতিমারীর বিষ-প্রকোপ-নানা দিক থেকেই মাথাচাড়া দিয়েছে বিতর্ক। সেই সব অনভিপ্রেত বিতর্কগুলিকে ফিরে দেখল সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল।

Advertisement

  • কৃষক বিক্ষোভ, মোদির ক্ষমা চাওয়া

বিতর্কিত তিন কৃষি আইনকে (Farm Law) কেন্দ্র করে ২০২০ সালের শেষদিকে শুরু হয় কৃষক বিক্ষোভ (Farmers Protest)। কিন্তু ২৬ জানুয়ারি সাধারণতন্ত্র দিবসে কৃষকদের লাল কেল্লা অভিযান ঘিরে বিতর্ক চরমে ওঠে। পুলিশের সঙ্গে সংঘর্ষ হয় বিক্ষোভকারীদের। লাল কেল্লায় নিশান সাহিবের পতাকা উত্তোলন করে বিক্ষোভকারীরা। সংঘর্ষে মৃত্যু হয় এক বিক্ষোভকারীর। পরে মার্কিন পপ তারকা রিহানা, পরিবেশকর্মী গ্রেটা থুনবার্গের মতো পশ্চিমের সেলেব্রিটিরা কৃষক আন্দোলন নিয়ে সোশ্যাল মিডিয়ায় সরব হন। টুইটে ‘টুলকিট’ শেয়ার করে বিতর্কের কেন্দ্রে উঠে আসেন গ্রেটা। তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআর দায়ের করে দিল্লি পুলিশ। এদিকে বছরের শেষদিকে ৩ অক্টোবর উত্তরপ্রদেশের লখিমপুরে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী অজয় মিশ্রের ছেলে আশিস মিশ্রর দ্রুতগামী গাড়ির চাকায় পিষ্ট হয়ে মৃত্যু হয় চার কৃষকের। ঘটনায় মৃত্যু হয় আরও চারজনের। আশিস মিশ্রকে গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। অবশেষে গুরু নানকের জন্মদিনে জাতির উদ্দেশে ভাষণ দেওয়ার সময় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি ঘোষণা করেন, বিতর্কিত তিন কৃষি আইন প্রত্যাহার করে নেবে কেন্দ্র।

Advertising
Advertising

  • কেন্দ্রের নয়া নীতি ও সোশ্যাল মিডিয়া

গত ফেব্রুয়ারিতে সোশ্যাল মিডিয়ায় (Social Media) রাশ টানতে একগুচ্ছ নির্দেশিকা জারি করা হয়েছিল কেন্দ্রের তরফে। বেঁধে দেওয়া হয়েছিল সময়সীমাও। কিন্তু নির্দিষ্ট সময়সীমার পরেও তা মানতে রাজি হয়নি সোশ্যাল মিডিয়া সংস্থাগুলি। পরে অবশ্য বরফ গলে। ফেসবুক (Facebook), হোয়াটসঅ্যাপের মতো সংস্থা মেনে নিলেও টুইটার বেঁকে বসেছিল। কিন্তু পরে তারাও কেন্দ্রের শর্ত মেনে চলতে রাজি হয়। এদিকে ২০২১ সালের শুরু থেকেই হোয়াটসঅ্যাপের (WhatsApp) নয়া প্রাইভেসি পলিসি নিয়ে বিতর্ক তুঙ্গে ওঠে। বলা হয়েছিল, নয়া নীতি গ্রহণ না করা হলে বন্ধ হয়ে যাবে এই মেসেজিং অ্যাপ। পরে চাপের মুখে অবশ্য সুর নরম করে তারা।

  • পর্নকাণ্ড ও রাজ কুন্দ্রা

বলিউড অভিনেত্রী শিল্পা শেট্টির স্বামী রাজ কুন্দ্রার (Raj Kundra) বিরুদ্ধে অভিযোগ ওঠে পর্নোগ্রাফির ব্যবসায় জড়িত থাকার। গত ১৯ জুলাই গ্রেপ্তার করা হয়েছিল শিল্পা শেট্টির স্বামীকে। ঘটনার সূত্রপাত হয়েছিল চলতি বছরের ফেব্রুয়ারি মাসে। শোনা যায়, সেই সময় মহিলাদের দিয়ে পর্ন ফিল্ম শুট করানোর অভিযোগে পাঁচজনকে গ্রেপ্তার করে মুম্বই পুলিশ। সেই সূত্র ধরেই অভিনেত্রী গেহনা বশিষ্ঠকে গ্রেপ্তার করা হলে তাঁর সূত্র ধরেই রাজের ওই ব্যবসায় জড়িত থাকার হদিশ পায় পুলিশ। ২০ সেপ্টেম্বর ৫০ হাজার টাকার বিনিময়ে তাঁর জামিন মঞ্জুর করে মুম্বইয়ের আদালত। রাজের দাবি, তিনি কখনই পর্ন ছবির ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন না।

  • উত্তরপ্রদেশে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কা, অক্সিজেনের অভাবে মৃত্যুমিছিল

করোনার (Coronavirus) দ্বিতীয় ঢেউয়ের ধাক্কায় দেশের বেশ কয়েকটি রাজ্যে চরম বিপর্যয় দেখা দিয়েছিল। তার মধ্যে অন্যতম উত্তরপ্রদেশ (Uttar Pradesh) ও দিল্লি। হাসপাতালে বেড ও অক্সিজেনের ঘাটতির কারণে কার্যত মৃত্যুমিছিল দেখা দেয়। যোগীরাজ্যে নদীতে একের পর এক শব ভেসে যাওয়ার দৃশ্য দেখে শিউরে উঠেছিল গোটা দেশ। যদিও কিছুদিন আগে সংসদে উত্তরপ্রদেশ সরকারের তরফে দাবি করা হয়, দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় রাজ্যে অক্সিজেনের অভাবে কোনও মৃত্যুর ঘটনার রিপোর্ট নেই। একথার বিরোধিতা করে কংগ্রেস সাংসদ দীপক সিং বলেন, সেই সময় বহু নেতা-মন্ত্রীরাই চিঠি লিখে জানিয়েছিলেন, রাজ্যে অক্সিজেনের অভাব রয়েছে। অক্সিজেনের অভাবে বহু মৃত্যুর ঘটনাই প্রকাশ্যে এসেছিল।

  • জ্যাকলিন-নোরা-ইডি বিতর্ক

আর্থিক কেলেঙ্কারিতে অভিযুক্ত ‘ঠগবাজ’ সুকেশ চন্দ্রশেখরের সঙ্গে জ্যাকলিনের (Jacqueline Fernandez) সম্পর্কের কথা প্রকাশ্যে আসতেই হইচই শুরু হয়। দিল্লির রোহিণী জেলে আপাতত বন্দি চন্দ্রশেখর। ২০০ কোটি টাকার প্রতারণার পাশাপাশি আরও ২০টি আর্থিক তছরুপের মামলায় জড়িয়ে তার নাম। কিছুদিন আগেই জ্যাকলিনের সঙ্গে এই সুকেশের অন্তরঙ্গ মুহূর্তের একটি ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ছড়িয়ে পড়ে। তখনই বিতর্ক চরমে ওঠে। পরে জানা যায়, নোরা ফতেহিকেও গাড়ি এবং দামি গয়না উপহার দিয়েছিল চন্দ্রশেখর। যদিও প্রথমে ইডির জেরায় উপহার পাওয়ার কথা চেপে গিয়েছিলেন দুই অভিনেত্রী। এমনও শোনা গিয়েছে, সুকেশ বলিউডের আরও ১২ জন অভিনেত্রীর সঙ্গে সখ্যস্থাপন করতে চেয়েছিল। এই ঘটনায় আরও চমক অপেক্ষা করে রয়েছে বলে মনে করছে ওয়াকিবহাল মহল।

  • পাঞ্জাবে শিখ ধর্মের অবমাননা বিতর্ক

বছরের একেবারে শেষে ধর্মীয় অবমাননার ঘটনা ঘিরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে পাঞ্জাব (Punjab)। ধর্মীয় অবমাননার অভিযোগে দুই ব্যক্তিকে পিটিয়ে মারা হয় অমৃতসর ও কাপুরথালায়। ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। রাজ্যের উপমুখ্যমন্ত্রী সুখজিন্দর সিং রান্ডোয়া স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহকে চিঠি লেখেন ধর্মীয় অবমাননাকারীদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডের বিষয়টি কার্যকর করার প্রসঙ্গে।

  • পেগাসাস বিতর্ক

২০২১ সালে দেশে যে ক'টি বিতর্ক চরমে উঠেছিল তার মধ্যে অন্যতম পেগাসাস (Pegasas) বিতর্ক। এক সর্বভারতীয় সংবাদমাধ্যম দাবি করে, পেগাসাস নামের এই ইজরায়েলি সফ্‌টওয়্যার ব্যবহার করে দেশের প্রথম সারির রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব, সাংবাদিক, মানবাধিকার কর্মী, শিল্পপতি এমনকী সরকারি আমলাদের উপরও নজরদারি চালাচ্ছে কেন্দ্র। এই অভিযোগকে কেন্দ্র করে সংসদ উত্তাল হয় বিরোধীদের বিক্ষোভে। বিষয়টি গড়ায় সুপ্রিম কোর্ট পর্যন্ত। শীর্ষ আদালতের নির্দেশে একটি তিন সদস্যের কমিটি গঠিত হয়েছে বিষয়টি খতিয়ে দেখতে।

  • নাগাল্যান্ডে সেনার গুলিতে সাধারণ নাগরিকের মৃত্যু

৪ ডিসেম্বর নাগাল্যান্ডে (Nagaland) জঙ্গি সন্দেহে একটি গাড়িতে গুলিবর্ষণ করে সেনাবাহিনীর কমান্ডোরা। ‘ইন্টেলিজেন্স ফেলিওর’ অর্থাৎ গোয়েন্দা তথ্যে ভুল ও পরিস্থিতি বিচারের গলদের জন্য প্রাণ হারাতে হয় ১৩ জন সাধারণ মানুষকে। পালটা উন্মত্ত জনতার হামলায় প্রাণ হারান এক জওয়ান। তারপর থেকেই আফস্পা আইনের বাতিলের দাবিতে বিক্ষোভ চলছে পাহাড়ি রাজ্যটিতে।

  • মাদক কাণ্ডে আরিয়ান খান

বলিউডের বাদশা শাহরুখ খানের (Shah Rukh Khan) মাদক কাণ্ডে জড়িয়ে পড়ে গ্রেপ্তার হওয়ার ঘটনাটি এবছর সম্ভবত টিনসেল টাউনের সবথেকে বড় বিতর্ক। ২ অক্টোবর মুম্বইয়ের বিলাসবহুল কর্ডেলিয়া ক্রুজের পার্টি থেকেই আরিয়ান ও তাঁর সঙ্গীদের আটক করা হয়। বেশ কয়েক দফা জিজ্ঞাসাবাদের পর ৩ অক্টোবর শাহরুখপুত্রকে গ্রেপ্তার করা হয়। ২৮ অক্টোবর মুম্বই হাইকোর্ট আরিয়ানের (Aryan Khan) জামিন মঞ্জুর করে। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর পর থেকেই বলিউডের মাদক যোগ ক্রমেই স্পষ্ট হয়ে গিয়েছিল। আরিয়ানের ঘটনায় বিষয়টি নতুন মোড় নিয়েছে।

  • বিজ্ঞাপনী দুনিয়ায় বিতর্কের ঢেউ

২০২১ সালে বিজ্ঞাপন জগতে সম্ভবত সবথেকে বেশি বিতর্ক হয়েছিল সব্যসাচী মুখোপাধ্যায়ের (Sabyasachi Mukherjee) ডিজাইন করা মঙ্গলসূত্রের বিজ্ঞাপন নিয়ে। বিজ্ঞাপনে কালো অন্তর্বাস পরিহিত মডেলের শরীরের অনেকটা অংশই খোলামেলা ছিল। বিজ্ঞাপনটি সামনে আসতে এমনই প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছিল বিখ্যাত ফ্যাশন ডিজাইনারকে। নেটিজেনদের একাংশের তুমুল নিন্দা রোষের শিকার হয়েছিলেন তিনি। সেই সঙ্গে মধ্যপ্রদেশের মন্ত্রীর হুঁশিয়ারি, আইনি নোটিসের ফাঁদেও পড়তে হয়। এদিকে ডাবরের করবা চৌথ সংক্রান্ত বিজ্ঞাপনে দুই সমকামী নারীকে দেখানো নিয়েও বিতর্ক হয়েছিল। চাপের মুখে বিজ্ঞাপনটি সমস্ত সোশ্যাল মিডিয়া প্ল্যাটপর্ম থেকে সরিয়ে নেয় সংস্থা। পাশাপাশি টুইটারে বিবৃতি জারি করে ক্ষমাও চাওয়া হয়।

  • বিরাট বনাম বোর্ড

বিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সৌরভ গঙ্গোপাধ্যায় (Sourav Ganguly) এবং ভারতীয় টেস্ট দলের অধিনায়ক বিরাট কোহলির (Virat Kohli) সম্পর্ক ইদানীং সংবাদের শিরোনামে। যার সূত্রপাত দক্ষিণ আফ্রিকা উড়ে যাওয়ার আগে কোহলির বিস্ফোরক সাংবাদিক বৈঠক থেকে। সৌরভের দাবি ছিল, তিনি কোহলিকে টি-টোয়েন্টি অধিনায়কত্ব ছাড়তে বারণ করেছিলেন। কিন্তু ওয়ানডে অধিনায়কত্ব হারানো বিরাট বলে দেন, টি-টোয়েন্টির নেতৃত্ব ছাড়তে তাঁকে কেউ বারণ করেনি। এমনকী মাত্র দেড় ঘণ্টা আগে জানানো হয়েছিল যে তিনি আর ওয়ানডে অধিনায়ক থাকছেন না। পরে গুরুগ্রামে এক অনুষ্ঠানে সৌরভকে নাকি বলতে শোনা যায়, “বিরাট কোহলির অ্যাটিটিউড আমার ভাল লাগে কিন্তু ও বড্ড বেশি ঝগড়া করে।”

  • 'বিতর্কের রানি' কঙ্গনা রানাউত

কঙ্গনা রানাউত (Kangana Ranaut) ও বিতর্ক যেন হাত ধরাধরি করে চলে। ২০২১ সাল জুড়েও অব্যাহত ছিল বলিউডের ‘কন্ট্রোভার্সি ক্যুইনে’র একের পর এক বিস্ফোরক মন্তব্য। তবে এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি শোরগোল হয়েছিল দু'টি মন্তব্যে। এক টেলিভিশন সাক্ষাৎকারে বলিউড অভিনেত্রী দাবি করেছিলেন, ভারত প্রকৃত স্বাধীনতা পেয়েছিল ২০১৪ সালে, যখন মোদি সরকার ক্ষমতায় এসেছিল। ১৯৪৭ সালে দেশ স্বাধীনতা পায়নি। ওটা ছিল ভিক্ষা। স্বাভাবিকভাবেই এমন মন্তব্যের পরেই তুঙ্গে ওঠে বিতর্ক। এখানেই শেষ নয়, কেন্দ্রের বিরুদ্ধে কৃষকদের এই প্রতিবাদকে খালিস্তানি আন্দোলনের সঙ্গে তুলনা করতেও ছাড়েননি তিনি। এমনকী খালিস্তানিদের তুলোধোনা করে সোশ্যাল মিডিয়ায় রীতিমতো বোমা ফাটিয়েছিলেন। মুম্বইয়ে তাঁর বিরুদ্ধে এফআইআরও দায়ের হয়।

  • টিকা বিতর্ক

২০২০ সালের ডিসেম্বরেই বিশ্বের অনেক দেশে টিকাকরণ (Vaccination) শুরু হলেও ভারতে টিকাকরণের সূচনা হয় ২০২১ সালে। ইতিমধ্যেই দেশের জনতার গরিষ্ঠ অংশ টিকার দুই ডোজ পেয়ে গেলেও টিকাকরণ নিয়ে নানা বিতর্ক দানা বেঁধেছে। এর মধ্যে অন্যতম কোভিশিল্ড টিকার দুই ডোজের মধ্যে ব্যবধানের মেয়াদ বৃদ্ধি। টিকাকরণের একেবারে শুরুতে এই ব্যবধান ছিল চার থেকে ছয় সপ্তাহ। পরে তা খানিকটা বাড়িয়ে করা হয় ৮ সপ্তাহ। শেষে তা দাঁড়ায় ১২ সপ্তাহে। যা নিয়ে শুরু হয়ে যায় বিতর্ক। সেই সঙ্গে ছিল টিকার ঘাটতির অভিযোগ। যদিও সময়ের সঙ্গে সঙ্গে পরিস্থিতির উন্নতি হয়েছে।

Advertisement
Next