কেরলে গাঁটছড়া সর্বকনিষ্ঠ বিধায়ক-মেয়রের, কেন অভিনব এই বিয়ে?

09:31 PM Sep 05, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল  ডেস্ক: এক বিয়েতে একাধিক নজির। প্রথমত, পাত্রী দেশের কনিষ্ঠতম মেয়র (Mayor), পাত্র কেরলের (Kerala) কনিষ্ঠতম বিধায়ক (MLA)। তাঁরা একে অপরের গলায় চেনা রজনীগন্ধা বা অন্য সাদা ফুলের মালা নয়, বরং টকটকে লাল রঙের মালা পরিয়ে চমকে লাগালেন। বলা বাহুল্য, বাম রাজনীতির রঙকে নিজেদের বিয়েতে অগ্রাধীকার দিলেন তরুণ যুগল। এছাড়াও আমন্ত্রণপত্রে অতিথিদের কোনওরকম উপহার আনতে বারণ করেন তাঁরা। বদলে অভিনব অনুরোধ করেন। কী সেই অনুরোধ?

Advertisement

সে কথা জানার আগে জেনে নেওয়া যাক যে দেশের কনিষ্ঠতম মেয়র হয়ে রেকর্ড গড়া সিপিএম (CPM) নেত্রীটি হলেন আর্য রাজেন্দ্রন (Arya Rajendran)। ২০২০ সালে ২১ বছর বয়সে তিরুঅনন্তপুরমের মেয়র হন তিনি। অন্যদিকে পাত্র কেরলের কনিষ্ঠতম বিধায়ক তথা সিপিএমের ছাত্রসংগঠন এসএফআইয়ের (SFI) নেতা সচিন দেব (Sachin Dev)। কোঝিকোড় জেলার বালুসেরি কেন্দ্র থেকে ২০২১ সালে প্রথমবার বিধানসভা ভোটে জেতেন এসএফআইয়ের রাজ্য সম্পাদক সচিন। রবিবার বিয়ে করলেন আর্যা-সচিন।

[আরও পড়ুন: নামবদল দিল্লির রাজপথ ও সেন্ট্রাল ভিস্তা লনের, নয়া নাম ঘোষণা কেন্দ্রের]

কেরল সিপিএমের সদর দপ্তরে একেজি সেন্টারেই হল বিয়ে। মালা বদলের অনাড়ম্বর বিয়ে। কিন্তু নজর কাড়ল মালার রং। যা আদতে দলীয় পতাকার লাল। কে কবে নব বর-বধূর গলায় লাল মালা দেখেছে! উপহার নিয়ে আর্যা ও সচিনের সিদ্ধান্তেও আপ্লুত আমজনতা। আজকাল অনেকেই বিয়েতে উপহার নেন না। সে কথা আর্যা-সচিনও বলেছেন। তবে এইসঙ্গে আমন্ত্রণপত্রে জানিয়েছেন, তাঁদের উপহার না দিয়ে অতিথিরা যেন মুখ্যমন্ত্রীর ত্রাণ তহবিল বা তিরুঅন্তপুরম পুরসভা পরিচালিত বৃদ্ধাশ্রমে অনুদান দেন।

Advertising
Advertising

[আরও পড়ুন: পরকীয়ার চরম পরিণতি! ভারী পাথরে গয়না ব্যবসায়ীর মাথা থেঁতলে দিল স্ত্রী-কন্যা]

উল্লেখ্য, গত ফেব্রুয়ারিতেই দলীয় সহকর্মী সচিনকে বিয়ে করার কথা ঘোষণা করেন আর্যা। এদিন সেই কাজ করলেন। দেশের কনিষ্ঠতম মেয়র আর্যা রাজেন্দ্রন ও কেরলের কনিষ্ঠতম বিধায়ক সচিন দেবের বিয়েতে হাজির ছিলেন কেরলের মুখ্যমন্ত্রী পিনারাই বিজয়ন (Pinarayi Vijayan), দলের রাজ্য সম্পাদক গোবিন্দন মাস্টার-সহ নেতা-নেত্রীরা। পরিবারের সদস্য এবং দলের নেতাদের উপস্থিতিতেই লাল মালা বিনিময় করেন নব দম্পতি। 

Advertisement
Next