Advertisement

পঞ্জশিরে প্রতিরোধ অব্যাহত, তালিবানকে পালটা দিতে সমান্তরাল সরকার গড়ল নর্দার্ন অ্যালায়েন্স

01:04 PM Sep 09, 2021 |
Advertisement
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: আফগানিস্তানে (Afghanistan) সরকার গড়েও স্বস্তিতে নেই তালিবান। মাত্র ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই আখুন্দ সরকারকে চ্যালেঞ্জের মুখে ফেলল নর্দার্ন অ্যালায়েন্স। গত কয়েকদিন ধরে পঞ্জশির তাদের দখলে বলে দাবি করছিল তালিবান। বুধবার সেই দাবি উড়িয়ে প্রতিরোধ বাহিনী জানাল, মোল্লা আখুন্দের নেতৃত্বে আফগানিস্তানের অন্তর্বর্তী সরকারকে তারা মানে না। কারণ এই সরকার বেআইনি। বরং তাদের আশ্বাস, আগামী কয়েকদিনের মধ্যে সমান্তরাল সরকার গড়তে চলেছে তারা। মাসুদ আহমেদ জানিয়ে দিয়েছেন, “পঞ্জশিরে লড়াই চলছে। প্রতিরোধ থামবে না।”

Advertisement

এদিন এক বিবৃতি জারি করেছে নর্দার্ন অ্যালায়েন্স (Northern Alliance)। তাতে বলা হয়েছে, “সরকার গঠনের নামে আফগানিস্তানের তালিবান যা করছে, তা একথায় প্রহসন। কারণ, তালিবানের সরকার গণতন্ত্র মানে না। তাই কিছু জঙ্গি নেতাকে মন্ত্রিসভায় জায়গা দেওয়া হয়েছে। দেশবাসীকে ফের একবার বন্দুকের নলের সামনে দাঁড় করাল তালিবান।”

googletag.cmd.push(function() { googletag.display('div-gpt-ad-1630720090-3');});

[আরও পড়়ুন: ‘৬০ লক্ষ মানুষের প্রাণ বাঁচাতে কাবুল ছাড়ি’, আফগানদের কাছে ক্ষমা চেয়ে সাফাই আশরফ ঘানির]

প্রতিরোধ বাহিনীর অভিযোগ, গত ১৫ আগস্ট থেকে তালিবান যা দাবি করেছিল, তার একটাও মানা হয়নি। বিশেষ করে দেশে নারী সুরক্ষার ব্যাপারে সব প্রতিশ্রুতি এখন উধাও বলেও অভিযোগ নর্দার্ন নেতাদের। তাঁদের মতে, “তালিবান (Taliban) বদলে গিয়েছে, এটা কোনওভাবেই বিশ্বাসযোগ্য নয়। যার প্রমাণ তাদের মন্ত্রিসভা। এরপর কীভাবে বিশ্বাস করা যাবে আফগান মহিলারা নিরাপদ থাকবেন?”

গত কয়েকদিন ধরে পঞ্জশিরের উপত্যকার প্রবল প্রতিরোধে তালিবানকে আটকেছে প্রতিরোধ বাহিনী। এই সংঘর্ষে মারা গিয়েছেন বাহিনীর অন্যতম মুখপাত্র এবং আহমেদ মাসুদ ঘনিষ্ঠ এক নেতাও। এই অবস্থায় আফগানিস্তানে তালিবান বিরোধী সমান্তরাল সরকার হবে বলেও এদিন ঘোষণা করা হল। প্রতিরোধ বাহিনীর নেতাদের মত, “আমরা গণতন্ত্রে বিশ্বাসী। আমরা মনে করি আমাদের সরকার প্রতিটি আফগানের নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে পারবে। গত ২০ বছর আফগানিস্তানে যে উন্নতি হয়েছে, তা আমাদের সরকার বজায় রাখবে।”

কে হবে নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের সমান্তরাল সরকারের নেতা ? আপাতত এই প্রশ্ন এড়িয়েছে প্রতিরোধ বাহিনী। তারা জানিয়েছে, সবদিক ভেবেচিন্তে এই ব্যাপারে সিদ্ধান্ত জানানো হবে। দিনকয়েক আগে তালিবান দাবি করেছিল, হামলার জেরে তাজিকিস্তানে পালিয়েছেন আমরুল্লা সালেহ এবং আহমেদ মাসুদ। এদিন সেই দাবিও ফের খারিজ করা হয়েছে। পাল্টা জানানো হয়েছে, এইরকম কোনও ঘটনা ঘটেনি।

[আরও পড়়ুন: America-Iran Clash: ট্রাম্পের পথেই বাইডেন, ইরানের সঙ্গে পরমাণু নিরস্ত্রীকরণ চুক্তি ‘বাতিলের হুমকি’ আমেরিকার]

তবে কূটনৈতিক মহলের খবর, যদি প্রতিরোধ বাহিনী সমান্তরাল সরকার তৈরি করে, সেক্ষেত্রে নেতা হওয়ার দৌড়ে এগিয়েছে আহমেদ মাসুদই। পঞ্জশিরে এসে সালেহ তালিবানের বিরুদ্ধে নর্দার্ন অ্যালায়েন্সের শক্তি বাড়িয়েছেন ঠিকই, কিন্তু মাসুদের নেতৃত্বে তালিবানকে পঞ্জশির ছাড়া করেছে প্রতিরোধ বাহিনী। এছাড়াও, উত্তর আফগানিস্তানে জনপ্রিয়তায় অনেক এগিয়ে মাসুদ। তাই মনে করা হচ্ছে, আহমেদ মাসুদের নেতৃত্বে নর্দার্ন অ্যালায়েন্স সমান্তরাল সরকার তৈরি করলে চাপ বাড়বে আখুন্দ সরকারের উপরই। কারণ, আফগানিস্তানের উত্তরের নেতাদের স্বীকৃতি দেওয়ার ব্যাপারে প্রক্রিয়া ইতিমধ্যে শুরু করেছেন আমারুল্লা সালেহ।

Advertisement
Next