মোদি সরকারের সপ্তম বর্ষপূর্তিকে ভাবমূর্তি ‘মেরামতি’র কাজে লাগাতে চায় বিজেপি, তৈরি পরিকল্পনা

02:33 PM May 26, 2021 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: করোনা আবহে মোদি সরকারের সপ্তম বর্ষপূর্তিতে কোনও আড়ম্বর নয়। এ সিদ্ধান্ত আগেই ঘোষণা করেছিল বিজেপি। কিন্তু তার মানে এই নয় যে, গেরুয়া শিবির কোনও রমক কর্মসূচিই গ্রহণ করবে না। বরং, মহামারীর আবহে সরকারের সপ্তম বর্ষপূর্তিকেই দলের ভাবমূর্তি মেরামতির কাজে লাগাতে চাইছেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জে পি নাড্ডা। করোনার দ্বিতীয় ঢেউ মোকাবিলায় ‘ব্যর্থতা’ অনেকাংশে কেন্দ্রের নরেন্দ্র মোদির সরকারের জনপ্রিয়তাকে আঘাত করেছে। বিজেপি চাইছে সরকারের সপ্তম বর্ষপূর্তিতে একগুচ্ছ সমাজসেবা মূলক পদক্ষেপ করে যতটা সম্ভব মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে।

Advertisement

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

করোনা আবহেই আগামী ৩০ মে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে সপ্তম বছর পূর্ণ করছেন নরেন্দ্র মোদি (Narendra Modi)। জেপি নাড্ডা (JP Nadda) দলের মুখ্যমন্ত্রীদের আগেই জানিয়েছেন, এবার সরকারের বর্ষপূর্তিতে কোনও উৎসবের প্রয়োজন নেই। বরং তার বদলে হোক সমাজসেবামূলক কাজ। মহামারীর প্রকোপে যারা অনাথ হয়েছে তাঁদের দায়িত্ব নিক সরকার। এবার দলের তরফে নতুন নির্দেশ গেল রাজ্যে রাজ্যে। গত সোমবার দলের রাজ্য নেতাদের ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে জে পি নাড্ডা বলে দিলেন, সরকারের ৩০ তম বর্ষপূর্তিতে দেশের অন্তত ১ লক্ষ গ্রামে পৌঁছে যেতে হবে বিজেপির নেতামন্ত্রীদের। দলের কর্মীরা গ্রামে গ্রামে গিয়ে মাস্ক, স্যানিটাইজার, অক্সিমিটার এবং ওষুধ পৌঁছে দেবেন। প্রত্যেক কেন্দ্রীয় এবং রাজ্যের মন্ত্রীকে অন্তত ২টি করে গ্রামে পৌছতে হবে। যদি সশরীরে হাজির থাকা সম্ভব নাও হয়, তাও অন্তত ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে পৌঁছে যেতে হবে গ্রামে গ্রামে। শুধু তাই নয়, বিজেপির তরফে আগামী ৩০ মে দেশজুড়ে অন্তত ৫০ হাজারটি রক্তদান শিবির করা হবে।

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});

[আরও পড়ুন: অ্যালোপ্যাথি নিয়ে বিতর্কিত মন্তব্যের জেরে রামদেবের বিরুদ্ধে দায়ের ১ হাজার কোটির মানহানির মামলা]

বিশেষজ্ঞদের ধারণা, করোনার দ্বিতীয় ঢেউ নিয়ে সাধারণের মধ্যে ক্ষোভ আঁচ করতে পেরেছে বিজেপি। সেকারণেই, সরকারের সপ্তম বর্ষপূর্তিতে বিজেপি দেখাতে চায় যে কোভিড মোকাবিলায় তাঁরাও সক্রিয়। দলের সাংসদদের তেমনই নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সেই সঙ্গে বারবার করে বলে দেওয়া হয়েছে, কোনও ভাবেই দলের কেউ যাতে কোনওরকম আড়ম্বরের অনুষ্ঠান না করেন। তাতে ‘নেগেটিভ’ প্রচারের আশঙ্কা থাকছে।

Advertising
Advertising

(adsbygoogle = window.adsbygoogle || []).push({});
Advertisement
Next