প্রাণ বাঁচাতে রক্ত দিয়েছিলেন জওয়ানরা, সেনা হাসপাতালে মৃত্যু সেই পাক ফিঁদায়ে জঙ্গির

01:52 PM Sep 04, 2022 |
Advertisement

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: জম্মুর রাজৌরি জেলায় নৌসেরার ঝাঙ্গর সেক্টরে অনুপ্রবেশের চেষ্টা করতে গিয়ে ধরা পড়া পাক (Pakistan) ফিঁদায়ে জঙ্গির (Terrorist) মৃত্যু হল সেনা হাসপাতালে। সপ্তাহ দুয়েক আগে পুলিশের জালে ধরা পড়ে ওই সন্ত্রাসবাদী। তারপর থেকে সেনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিল তাবারক হোসেন নামের ওই জঙ্গি। শনিবার হৃদরোগে তার মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

Advertisement

গত ২১ আগস্ট পাকিস্তান থেকে ভারতীয় ভূখণ্ডে অনুপ্রবেশের চেষ্টা চালায় জঙ্গিরা। কিন্তু নিয়ন্ত্রণরেখা পুঁতে রাখা মাইন ফিল্ডের ফাঁদে পড়ে যায় তারা। বিস্ফোরণে নিকেশ হয় দু’জন জঙ্গি। আহত অবস্থায় পাকড়াও করা হয় তাবারক হোসেনকে। কাশ্মীরের কোটলি জেলার সবজকোট গ্রামের বাসিন্দা। জেরায় সে জানায়, পাক সেনার কর্নেল ইউনুস চৌধুরী তাকে ৩০ হাজার টাকা দিয়ে ভারতীয় সেনার উপর হামলার নির্দেশ দিয়েছিল। সেনা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় থাকার সময় তাবারকের প্রাণ বাঁচাতেই তিন বোতল রক্ত দিতে দেখা যায় জওয়ানদের। প্রাথমিক ভাবে বিপন্মুক্ত হয় সে। কিন্তু শেষরক্ষা হল না। শনিবার মৃত্যু হল তার।

[আরও পড়ুন: ‘TET নেবেন না, আত্মহত্যা করব’, নিয়োগ তৎপরতা শুরু হতেই পর্ষদ সভাপতিকে হুমকি উত্তীর্ণদের]

সূত্রের খবর, এর আগে ভারতীয় পোস্টগুলি সম্পর্কে ‘রেকি’ করতে এসেছিল তাবারক। হামলা চালানোর জন্য ২১ আগস্ট চূড়ান্ত সবুজ সংকেত পায় সে। ঘটনাচক্রে, একই সেক্টর থেকে ২০১৬ সালেও তাবারক হোসেনকে গ্রেপ্তার করেছিল ভারতীয় সেনা। সে বার তার সঙ্গে ধরা পড়ে তার ভাই হারুন আলিও। তবে স্রেফ মানবিকতার খাতিরে ২০১৭ সালের নভেম্বরে পাকিস্তানে ফেরত পাঠানো হয় দু’জনকেই।

Advertising
Advertising

সাম্প্রতিক অতীতে পাক জঙ্গিদের অনুপ্রবেশের চেষ্টা বারবার বানচাল হয়ে গিয়েছে উপত্যকায় (Jammu and Kashmir)। কিন্তু তবুও জঙ্গি হামলার ঘটনা বন্ধ হয়নি। গত শুক্রবারই পুলওয়ামায় (Pulwama)এক বাঙালি শ্রমিকের উপর হামলা চালায় সন্ত্রাসবাদীরা (Terrorists)। দুটি গুলি লেগেছে তাঁর শরীরে। গুরুতর আহত অবস্থায় স্থানীয় হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ওই যুবক।

[আরও পড়ুন: শেষ পাঁচ বছরে একটিও দাঙ্গা হয়নি উত্তরপ্রদেশে, যোগীর দাবি ঘিরে বিতর্ক]

Advertisement
Next