Advertisement

উত্তরপ্রদেশে ফের আটক প্রিয়াঙ্কা, পুলিশের সঙ্গে ধস্তাধস্তি কংগ্রেস কর্মীদের, তুঙ্গে রাজনৈতিক তরজা

06:38 PM Oct 20, 2021 |

সংবাদ প্রতিদিন ডিজিটাল ডেস্ক: মাঝখানে মাত্র কয়েক দিনের ব্যবধান। উত্তরপ্রদেশে ফের আটক হলেন কংগ্রেস নেত্রী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী (Priyanka Gandhi)। বুধবার আগ্রায় পুলিশ হেফাজতে মৃত সাফাইকর্মীর সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার পথে প্রিয়াঙ্কার কনভয় আটকে দেয় পুলিশ। বেশ কিছুক্ষণ কথা কাটাকাটির পর পুলিশের সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে পড়েন কংগ্রেস কর্মীরা। তাঁদের মধ্যে বচসা শুরু হয়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে প্রিয়াঙ্কাকে আটক করা হয়।

Advertisement

আসলে মঙ্গলবার রাতেই পুলিশি জেরা চলাকালীন অরুণ বাল্মীকি নামে আগ্রার এক সাফাইকর্মীর মৃত্যু হয়। পুলিশ সূত্রের খবর মঙ্গলবার জিজ্ঞাসাবাদ চলাকালীন হঠাতই অসুস্থ হয়ে পড়েন তিনি। তারপরই তাঁর মৃত্যু হয়। বুধবার বাল্মীকি জয়ন্তীতে মৃত ওই সাফাইকর্মীর পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করতে যান প্রিয়াঙ্কা। কিন্তু আগ্রার (Agra) পুলিশ আধিকারিকরা মাঝরাস্তায় তাঁকে আটকে দেন।

[আরও পড়ুন: Bangladesh Violence: বাংলাদেশে হিন্দুদের ‘গণহত্যা’ নিয়ে নীরব কেন বিজেপি? প্রশ্ন খোদ গেরুয়া শিবিরের সাংসদের]

পুলিশের দাবি, আগ্রার জেলাশাসক আগেই নির্দেশ দিয়ে রেখেছিলেন, ওই এলাকায় কোনও রাজনৈতিক দলের নেতাকে ঢুকতে দিলে অশান্তির আশঙ্কা আছে। সেজন্য এলাকায় ১৪৪ ধারাও জারি করা হয়েছিল। এমনকী প্রিয়াঙ্কা গান্ধী আগ্রায় বাল্মীকি পরিবারের সঙ্গে দেখা করার জন্য লিখিত অনুমতিও নেননি। সেকারণেই তাঁকে আটক করা হয়েছে। পালটা প্রিয়াঙ্কার যুক্তি, পুলিশ হেফাজতে মৃত সাফাইকর্মীর পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে যাওয়ার জন্য আবার কীসের অনুমতি? যোগীর (Yogi Adityanath) রাজ্যে কি নাগরিকদের মৌলিক অধিকারও নেই?

[আরও পড়ুন: কাজের হিসেব চাইতেই ব্যক্তিকে সপাটে চড় কংগ্রেস বিধায়কের! ভাইরাল ভিডিও ঘিরে শোরগোল]

কংগ্রেস নেত্রী বলেন,”ওঁরা বলছেন আমি আগ্রা যেতে পারব না। আমি যেখানেই যাই ওঁরা আটকে দেয়। আমি কি শুধু রেস্তরাঁয় বসে থাকব? এটাই কি ওঁদের রাজনৈতিক উদ্দেশ্য? আমি শুধু ওঁদের সঙ্গে দেখাই তো করতে চেয়েছি? এর মধ্যে কী এমন বড় ব্যাপার।” প্রিয়াঙ্কা আটক হওয়ার পর সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রতিবাদে সরব হয় কংগ্রেস (Congress)। চাপের মুখে পড়ে ঘণ্টাদুয়েক বাদে ছেড়ে দেওয়া হয় কংগ্রেস নেত্রীকে। প্রিয়াঙ্কা-সহ মোট পাঁচজনকে আগ্রা যাওয়ার অনুমতি দেয় প্রশাসন।

Advertisement
Next